যে দেশে একটিও মসজিদ নেই

যে দেশে এখন পর্যন্তু একটিও মসজিদ নেই। বিষয়টি একটু গভীরভাবে ভেবে দেখলে মুসলিম ধর্মীয় জাতিদের অনেক খারাপ লাগানোর কথা।

তবে বিশ্বাস হলেও সত্যি বিশ্বের মধ্যে প্রায় সব দেশেই মসজিদ আছে, কিন্তু ইউরোপের এমন একটি দেশ রয়েছে সেই দেশে এখন পর্যন্তু একটিও মসজিদ নেই এবং মসজিদ তৈরী স্থাপনের জন্য কোন নির্ধারিত নিয়মও নেই

মসজিদ নেই সেই বিষয়ে পুরো পোষ্টটির মাধ্যমে জানতে পারবেন। কি করণে সেই দেশে এখন পর্যন্ত মসজিদ নেই বা এখনো মসজিদ স্থাপন করা হয়নি।

যে দেশে একটিও মসজিদ নেই

শ্লোভাকিয়াতে মসজিদ নেই

ইউরোপীয় ইউনিয়নের ছোট্ট একটি দেশ শ্লোভাকিয়া। বিশ্বের উন্নয়নশীল দেশেগুলোর একটি সঠিক তালিকা রয়েছে সেই তালিকায় যুক্ত রয়েছে শ্লোভাকিয়া। শ্লোভাকিয়া দেশটিতে মুসলমানরা তুর্কি এবং ওগার ১৭ দশক থেকে বসবাস করে আসছে।

তবে সঠিক তথ্য অনুযায়ী ২০১০ সালে সেখানে মুসলমানদের সংখ্যা ছিল ৫২ হাজার। অনেক মুসলমান থাকার স্বত্বেও সেই দেশটিতে কোন মসজিদ নেই।

কেন শ্লোভাকিয়ায় কোন মসজিদ নেই

সঠিক তথ্য অনুসারে জানা যায় শ্লোভাকিয়ার সরকার মুসলিম ধর্মের অফিসিয়ালী ভাবে বাধ্যবাতকতা দিতে অস্বীকার করেছে। পূর্বে এই দেশটিকে ওগোস্লাভাকিয়া বলা হত। এর পরে এটিকে ভেঙ্গেছিল তখন শ্লোভাকিয়া অন্য দেশে রুপান্তরিত হয়েছিল।

সে সময় শ্লোকাভিয়া ভেঙ্গে তৈরী হওয়া আলবেনিয়ার মত অন্যান্য দেশের মুসলিম এখানে স্বরনার্থী হয়ে চলে এসেছিল।

এই জায়গার বর্তমান রাজধানীর নাম ব্রাতিস্লাভা। এশিয়া থেকে অনেক মুসলমানরা এখানে আসেন। শ্লোভাকিয়া ইউরোপীয় ইউনিয়নের সর্বশেষ সদস্য দেশ। তবে জানা যায় এই দেশটিতে একটি মসজিদ নির্মাণ নিয়েও অনেক বির্তক রয়েছে।

শ্লোভাকিয়াতে মুসলিম আছে মসজিদ নেই

গত ২০০০ সালে শ্লোভাকিয়ার রাজধানীতে একটি ইসলামীক কেন্দ্র নির্মাণ করার বিষয়েও অনেক বির্তক হয়েছিল। যেখানে ব্রাতিস্লাভার মেয়র শ্লোভাক ইসলামিক ওয়াক ফাউন্ডেশনের নামে সমস্ত প্রস্তাব বাতিল করেছিলেন।

তবে প্রকৃতপক্ষে ২০১৫ সালে স্বরনার্থীদের ইউরোপে একটি ইস্যু হয়ে দাড়িয়ে। ২০০ জন খ্রিষ্টানকে সেখানে আশ্রয় দেওয়া হলেও শ্লোভাকিয়ার সরকার মুসলিমদের আশ্রয় দেওয়া পুরোপুরীভাবে অস্বিকার করে।
 
শ্লোভাকিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন এদেশে মুসলিমদের বসবাস করার মত কোন প্রকার আশ্রয় দিলে অনেক সমস্যার সৃষ্টি তৈরী হবে। শ্লোভাকিয়ার প্রেসিডেন্ট রবার্ডপিকো অস্ট্রেলিয়ান সংবাদ সাক্ষাতকারের মধ্যে বলেছিলেন শ্লোভাকিয়া খ্রিষ্টান ধর্মালম্বিদের দেশ।

ফলে এদেশে হাজার হাজার লাখ লাখ মুসলিম জাতিকে কোন প্রকার আশ্রয় দেয়া যাবে না। কারণ মুসলিম জাতি এই দেশে এসে তাদের ধর্ম পালনের জন্য মসজিদ নির্মাণের কাজ শুরু করবে।

শ্লোকাভিয়ায় মসজিদ নির্মাণ আবেইনী

২০১৬ সালের ৩০ নভেম্বর শ্লোভাকিয়ায় একটি কঠোর আইন পাশ করে। আইনে বলা হয় ইসলাম ধর্মকে পুরোপুরীভাবে এদেশে নিষিদ্ধ এবং বেআইনী বলে ঘোষনা করে।

তবে পশ্চিমা দেশগুলোতে ইসলামী আন্দোলন ছড়িয়ে পড়লে শ্লোভাকিয়া সরকার তারপর আরো একটি আইন পাশ করে। ইসলাম ধর্মকে সঠিক মর্যাদা দেয়া একদম নিষিদ্ধ বলে ঘোষণা করেন।

তারপরে শ্লোভাকিয়ায় সংসদ ভবনে মুসলিম ধর্ম সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ করেন। তাছাড়া শ্লোভাকিয়ার সংসদ ভবনে আরো আইন পাশ করেছে যে অন্যান্য ধর্মের জন্য সেখানে স্বীকৃতি দেওয়া হবে তার জন্য নিম্নে সংখ্যা হতে হবে ৫০ হাজার জন। কিন্তু ইসলাম ধর্মকে কোন ভাবে স্বকৃতি দেওয়া হবে না বলে একেবারে নিষিদ্ধ বলে ঘোষনা করেন। 

ইউরোপের দেশটিতে মসজিদ নির্মাণ বেআইনী

ইউরোপের শ্লোকাভিয়া দেশের দলীয় নেতা আন্ডেসিকো বলেছেন এই দেশে কোন প্রকার ইসলাম ধর্মের জন্য কোন প্রকার মসজিদ নির্মাণ না করা হয় এবং সেই বিষয়ে সকল পদক্ষেপ গ্রহণ করেন।

শ্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রী এডুয়ার্ড হেগার বলেছেন এদেশের ইসলাম ধর্মালম্বীদের কোন স্থান নেই। শ্লোভাকিয়া দেশে কোন প্রকার মসজিদ নির্মাণ করা যাবে না। সেই জন্য শ্লোভাকিয়া এমন একটি দেশ যেখানে আজ পর্যন্ত একটিও মসজিদ নেই।

একটিও মসজিদ নেই

তবে বর্তমানে শ্লোভাকিয়ায় প্রায় ৫২ লাখ জনসংখ্যা মধ্যে মাত্র ০.২ শতাংশ মানুষ মুসলমান। তবে শুধু শ্লোভাকিয়ায় নয় ইউরোপের অনেক দেশ যেমন হাঙ্গেরী, চেকরীপাবলিক এবং এস্তোরিয়ার মত পূর্ব এবং দক্ষিণ দেশগুলেতে ইসলাম ধর্মের জন্য পুরোপুরীভাবে নিষিদ্ধ করেছে সেই দেশগুলোর সরকার।

মুসলিম ধর্ম ছাড়া এদেশগুলোতে শুধুমাত্র খ্রিষ্টান ধর্মালম্বীদের জন্য সবচেয়ে বেশি স্বকৃতিপ্রাপ্ত দেশ বলে জানা যায়।

মুসলিম জাতির পূর্ব পুরুষ ও নারী আদম-হাওয়া। আল্লাহ তায়ালার শ্রেষ্ট জীব মানুষ। আল্লাহ তায়ালা সর্বপ্রথম পৃথিবীতে মুসলিম জাতি হিসেবে এই দুইজন আদম-হাওয়াকে প্রেরণ করেন।

তবে দেখুন দুইটি মুসলিম জাতির মানব সৃষ্টির মধ্যে দিয়ে কতই না জাতীর সৃষ্টি হয়েছে। যা কিনা বর্তমান বিশ্বের মধ্যে কিছু উন্নয়নশীল দেশগুলোতে মুসলিম ধর্ম ইবাদত পালন করার জন্য এখনো কোন মসজিদ নেই।


সূত্র:- sabuj240.com

Post a Comment

1 Comments

  1. এই বিষয়টি একেবারেই জানতাম না। খুব ভাল ইনফরমেশন এটা। ধন্যবাদ আপনাকে এত গুরুত্বপূর্ণ একটা টপিক নিয়ে লিখার জন্য। কি কারণে তারা মুসলমানদের নিষিদ্ধ করছে এই বিষয় নিয়ে আরও বিস্তারিত জানতে পারলে ভাল লাগতো। ধন্যবাদ

    ReplyDelete

Do not share any link